রাজস্থলীতে সেনামদদপুষ্ট মগ পার্টির ব্যারাক নির্মাণ ও তৎপরতা বৃদ্ধির অভিযোগ

0
1727

হিল ভয়েস, ৫ এপ্রিল ২০২৪, রাঙ্গামাটি: রাঙ্গামাটি জেলাধীন রাজস্থলী উপজেলায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মদদপুষ্ট অন্যতম সন্ত্রাসী সংগঠন মগ পার্টি কর্তৃক নতুন করে সন্ত্রাসী তৎপরতা বৃদ্ধি এবং দুটি নতুন সশস্ত্র ব্যারাক নির্মাণ করা হচ্ছে বলে স্থানীয় জনগণের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি ব্যারাক নির্মাণের কাজে স্থানীয় ও আশেপাশের গ্রামবাসীকে বিনা মজুরীতে কাজ করতে বাধ্য করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মগ পার্টির সন্ত্রাসীরা আজ (৫ এপ্রিল) রাজস্থলীর পার্শ্ববর্তী রাইখালী ইউনিয়নে নিরীহ এক মারমা চা দোকানদারকে বেদম মারধর করেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, অতি সম্প্রতি মগ পার্টির সন্ত্রাসীরা রাজস্থলী উপজেলার ২নং গাইন্দ্যা ইউনিয়নের পোয়াইতু পাড়ায় একটি এবং ৩নং বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়নের কেংড়াছড়ি এলাকায় একটি নতুন সশস্ত্র ব্যারাক নির্মাণ শুরু করেছে। এজন্য তারা গত ৩ এপ্রিল থেকে পোয়াইতু পাড়া ও কেংড়াছড়ি এলাকাসহ আশেপাশের জুম্ম গ্রামবাসীদের ভাগ করে পালাক্রমে ব্যারাক নির্মাণ কাজে যেতে বাধ্য করছে।

উক্ত গ্রাম ছাড়াও মগ পার্টির সন্ত্রাসীরা পার্শ্ববর্তী কাপ্তাই উপজেলার রাইখালী ইউনিয়নের গবছড়া, উপর নাড়াছড়া, নিচের নাড়াছড়া, কচ্ছিরি পাড়া, নারেঙ্গিরি বড় পাড়া ইত্যাদি জুম্ম গ্রামের প্রতি পরিবার থেকে একজনকে গত ৪ এপ্রিল থেকে উক্ত ব্যারাক নির্মাণ কাজে কাজ করতে নির্দেশ দিয়েছে বলে জানা গেছে।

কাজে না গেলে প্রত্যেককে দিনে ৫০০ টাকা জরিমানা দিতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে।

উক্ত ব্যারাকগুলিতে বর্তমানে মাটি কাটার কাজ চলছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

আরো জানা গেছে যে, আজ ৫ এপ্রিল ২০২৪ সকাল আনুমানিক ১০ টার দিকে মগ পার্টি সন্ত্রাসীদের দুই কমান্ডার সবুজ মারমা ও প্রান্ত ঘোষ রনি রাজস্থলী উপজেলার পার্শ্ববর্তী কাপ্তাই উপজেলার রাইখালী ইউনিয়নের রাইখালী বাজার সংলগ্ন মাঝিপাড়ায় তাদের আস্তানায় ডেকে এক নিরীহ মারমা চা দোকানদারকে বেদম মারধর করে। প্রহারের শিকার ব্যক্তির নাম ক্যথোয়াইচিং মারমা (৩৯), পীং-মৃত হ্লাচাই অং মারমা, গ্রাম-ডলুছড়ি আগা পাড়া, ১নং ওয়ার্ড, রাইখালী ইউনিয়ন।

জানা গেছে, জেএসএস লোকদের বিভিন্ন খবর দেয় এমন মিথ্যা অভিযোগ এনে ক্যথোয়াইচিং মারমাকে মারধর করে সন্ত্রাসীরা।

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেও হিল ভয়েস সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সম্প্রতি মগ পার্টি খ্যাত মারমা ন্যাশনালিস্ট পার্টির (এমএনপি) সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের কর্তৃক রাজস্থলী উপজেলায় তৎপরতা বৃদ্ধি, প্রকাশ্যে অস্ত্র প্রদর্শন ও হুমকি প্রদানের খবর পাওয়া পাওয়া যায়। এই সময় মগ পার্টির সন্ত্রাসীদের একাধিক ফেসবুক পেইজ থেকে প্রচারিত ভিডিওর মাধ্যমে প্রকাশ্যে অস্ত্র প্রদর্শন করে হুমকি প্রদান করতে দেখা গেছে।

স্থানীয়দের মতে, সেনা ক্যাম্পের পাশে অবস্থান করেই মগ পার্টির সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে এসব কর্মকান্ড চালাচ্ছে। সেনাবাহিনী দেখেও না দেখার ভান করছে।

জানা গেছে, বর্তমানে রাজস্থলী উপজেলায় মগ পার্টি সন্ত্রাসীরা দুটি দলে দুটি আস্তানায় অবস্থান করে সেখান থেকে যাবতীয় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালাচ্ছে। এর একটি আস্তানা অবস্থিত বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়নের বাঙ্গালহালিয়া বাজারের পেছনে নাইক্যছড়া সড়কের পাশে জনৈক তঞ্চঙ্গ্যা গ্রামবাসীর সেমিপাকা বাড়িতে। ঐ বাড়িটি তারা ইতিপূর্বে বাড়ির মালিকের কাছ থেকে জোর করে দখল করে এবং বাড়ির মালিককে বাড়িছাড়া করে। সন্ত্রাসীদের এই আস্তানাটি বাঙ্গালহালিয়া বাজার সেনা ক্যাম্পের মাত্র ২ শত গজের মধ্যে অবস্থিত।

মগ পার্টির অপর আস্তানাটি গাইন্দ্যা ইউনিয়নের পোয়াইতু পাড়ায় অবস্থিত বলে জানা গেছে।

অভিযোগ রয়েছে যে, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের পরিস্থিতিতে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সেনাবাহিনী ও ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের স্থানীয় নেতৃত্ব চুক্তি বিরোধী ও পিসিজেএসএস বিরোধী অন্যান্য সন্ত্রাসী সংগঠনের ন্যায় এই মগ পার্টি সংগঠিত করে এবং এ পর্যন্ত লালন-পালন করে আসছে। সৃষ্টির পর থেকে এই মগ পার্টি সেনাবাহিনী ও ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে বান্দরবানের কিছু এলাকাসহ রাঙ্গামাটির রাজস্থলী এলাকায় চাঁদাবাজি, অপহরণ, মুক্তিপণ আদায়, হত্যাকান্ড ইত্যাদি সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে।