বরকলে সেনাবাহিনী ও সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর যৌথ দল কর্তৃক ৬ জুম্ম গ্রামবাসীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ, অবশেষে মুক্তি

0
961
ছবি : প্রতীকী

হিল ভয়েস, ২৫ আগস্ট ২০২১, রাঙ্গামাটি: বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং সেনামদদপুষ্ট সংস্কারপন্থী ও ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) সন্ত্রাসী সদস্যদের যৌথ দল কর্তৃক রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলাধীন বরকল উপজেলার বরকল ইউনিয়ন এলাকা থেকে ছয় নিরীহ জুম্ম গ্রামবাসীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উক্ত ছয় গ্রামবাসীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর সেনাবাহিনী তাদেরকে পার্শ্ববর্তী জুরাছড়ি উপজেলার জুরাছড়ি সেনা জোনে একরাত আটক রাখার পর আজ রাঙ্গামাটি সদরের দিকে নিয়ে গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তবে এ রিপোর্টটি লেখার শেষ মুহূর্তে আজ (২৫ আগস্ট ২০২১) সেনাবাহিনী আটককৃতদের রাঙ্গামাটি সদর এলাকা থেকে ছেড়ে দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

ভুক্তভোগী গ্রামবাসীরা হলেন- (১) শান্তিপ্রিয় চাকমা (৫০), পীং-নতুন লাল চাকমা, গ্রাম-বাঙাল বাচ্চে, বরকল ইউনিয়ন; (২) বুদ্ধমনি চাকমা (৬২), পীং-আবুচন্দ্র চাকমা, গ্রাম-ডাকভাঙ্গা, বরকল ইউনিয়ন; (৩) মঙ্গলবুদ্ধ চাকমা (৩৮), পীং-মৃত সতিলাল চাকমা, গ্রাম-বাঙ্গাল বাচ্চে, বরকল ইউনিয়ন; (৪) সুমন চাকমা (৩২), পীং-মৃত গুনচক্র চাকমা, গ্রাম-করকুটিছড়ি, বরকল ইউনিয়ন; (৫) হিরণ শান্তি চাকমা (৩৪), পীং-অজ্ঞাত, গ্রাম-অজ্ঞাত ও (৬) দলাপুনা চাকমা (৭০), বড় হরিণা ইউনিয়ন।

জানা গেছে, আটককৃত শান্তিপ্রিয় চাকমা বরকল ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের একজন নির্বাচিত সদস্য বলে জানা গেছে। অপরদিকে দলাপুনো চাকমা একজন বৈদ্য (প্রথাগত চিকিৎসক)। জনৈক গ্রামবাসী এক রোগীকে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে তাকে বাঙাল বাচ্চে গ্রামে নিয়ে আসেন। আটকের সময় ওই গ্রামবাসী সেনাবাহিনী ও সন্ত্রাসীদের নিকট বৈদ্য দলাপুনো চাকমা ছেড়ে দেওয়ার জন্য অনেক কাকুতি-মিনতি করলেও সেনা সদস্যরা তা ভ্রক্ষেপ করেনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল ২৪ আগস্ট ২০২১ বিকাল আনুমানিক ৩:০০ টার দিকে পার্শ্ববর্তী জুরাছড়ি উপজেলার ভিজা হিজিং সেনা ক্যাম্পের সেনাবাহিনী এবং সুবলং বাজার এলাকায় অবস্থানরত সংস্কারপন্থী ও ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) সন্ত্রাসী সদস্যদের ২০-২৫ জনের একটি যৌথ দল বরকল ইউনিয়ন এলাকায় যায়। এরপর সেনাবাহিনী ও সন্ত্রাসী সদস্যরা মিলে উক্ত ছয় গ্রামবাসীকে নিজ নিজ বাড়ি থেকে আটক করে ট্রলার বোটে করে নিয়ে যায়। সেনাবাহিনীর সদস্যদের সাথে আসা প্রায় চার জনের সন্ত্রাসী দলে অমরধন চাকমা নেতৃত্ব দেন বলে জানা যায়।

সেনাবাহিনী ঐদিনই সন্ধ্যার দিকে আটককৃত জুম্ম গ্রামবাসীদের জুরাছড়ি উপজেলার জুরাছড়ি সেনা জোনে নিয়ে যায় বলে জানা যায়। সেখানে সারারাত আটক রাখার পর আজ সকালের দিকে সেনাবাহিনী আটককৃতদের রাঙ্গামাটি সদরের দিকে নিয়ে যায় বলে খবর পাওয়া যায়।

এই রিপোর্ট লেখার প্রায় শেষ মুহূর্তে সন্ধ্যার দিকে সেনাবাহিনী আটককৃতদের রাঙ্গামাটি থেকে ছেড়ে দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।