কাপ্তাইয়ে বেড়াতে এসে সেনাবাহিনী কর্তৃক ২ নিরীহ জুম্ম আটক এবং মিথ্যা মামলার শিকার

0
736

হিল ভয়েস, ৮ মে ২০২১, রাঙ্গামাটি: রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার রাজস্থলী থেকে কাপ্তাইয়ে শশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে ২ নিরীহ জুম্ম সেনাবাহিনী কর্তৃক আটক এবং পরে মিথ্যা মামলার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেনাবাহিনী ওই দুই জুম্মকে আটকের পর মিথ্যা মামলায় জড়িত করে পুলিশের নিকট সোপর্দ করেছে বলে জানা গেছে।

আটককৃত দুই জুম্ম হলেন- (১) সোনারাম তঞ্চঙ্গ্যা (২৬), পীং-ভালাধন তঞ্চঙ্গ্যা, গ্রাম-ঘিলামুখ আমতলী পাড়া, গাইন্দ্যা ইউনিয়ন, রাজস্থলী উপজেলা ও (২) সুজন তালুকদার (৩২), পীং-অনিল তালুকদার, গ্রাম-ভালুক্যা (ভালুকিয়া) মধ্যে পাড়া, ৭নং ভালুকিয়া ওয়ার্ড, রাইখালী ইউনিয়ন, কাপ্তাই উপজেলা।

জানা গেছে, মাত্র কয়েকদিন আগে আটককৃত দুই জুম্ম সোনারাম তঞ্চঙ্গ্যা ও সুজন তালুকদার চট্টগ্রাম থেকে স্ব স্ব বাড়িতে আসেন। প্রায় চার বছর ধরে তারা চট্টগ্রামে কারখানায় চাকরি করেন। বিশেষ করে সোনারাম তঞ্চঙ্গ্যা তার স্ত্রীর সন্তান প্রসবের দিন ঘনিয়ে আসায় রাজস্থলীতে নিজের বাড়িতে আসেন। পাশাপাশি সুজন তঞ্চঙ্গ্যাও বাড়িতে আসেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৬ মে ২০২১ সোনারাম তঞ্চঙ্গ্যা কাপ্তাই উপজেলাধীন রাইখালী ইউনিয়নের ভালুক্যা গ্রামে তার শশুর বাড়িতে বেড়াতে আসেন। তার সাথে যোগ দেন তারই বন্ধু একই এলাকার সুজন তালুকদার।

ঐ দিনই সন্ধ্যা আনুমানিক ৭:৩০ টার দিকে স্থানীয় ভালুক্যা মিতিঙ্গাছড়ি সেনা ক্যাম্পের একদল সেনা সদস্য সোনারাম তঞ্চঙ্গ্যার শশুর বাড়ির পার্শ্ববর্তী দোকানের পাশ থেকে সোনারাম তঞ্চঙ্গ্যা ও সুজন তালুকদারকে আটক করে। জানা গেছে, সেনা সদস্যরা এ সময় সেখান থেকে ৫ জুম্মকে আটক করে। পরে তিন জনকে ছেড়ে দিয়ে আটককৃত সোনারাম তঞ্চঙ্গ্যা ও সুজন তালুকদারকে স্থানীয় চন্দ্রঘোনা থানায় নিয়ে যায়।

এসময় সেনা সদস্যরা আটককৃতদের ২০২০ সালে সংঘটিত জনসংহতি সমিতির কর্মী দুর্জয় তঞ্চঙ্গ্যা হত্যার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় মিথ্যাভাবে জড়িত করে পুলিশের নিকট সোপর্দ করে। চন্দ্রঘোনা থানায় উক্ত মামলার নং-০১, তাং-০৫/০৪/২০২০, ধারা-৪৪৮/৩০২/৩৪ পেনাল কোড। আটককৃত দুই জনকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে উক্ত হত্যা মামলার আসামী হিসেবে গ্রেফতার দেখানো হয়।

জানা গেছে, সেনাবাহিনী প্রথমে আটককৃতদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে জনসংহতি সমিতির সাথে জড়িত থাকার এবং জনসংহতি সমিতিকে অস্ত্র সংগ্রহ করে দেয়ার অভিযোগ আনারও চেষ্টা করে। তবে পরে পুলিশ মামলা থেকে ঐসব অভিযোগ বাদ দেয়।

উল্লেখ্য, প্রায় এক বছর আগে সেনামদদপুষ্ট সংস্কারপন্থী সন্ত্রাসীরা জনসংহতি সমিতির কর্মী দুর্জয় তঞ্চঙ্গ্যাকে হত্যা করে বলে অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু এ পর্যন্ত প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রকৃত হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি বলে জানা যায়।

জানা গেছে, গত ৭ মে ২০২১ চন্দ্রঘোনা থানা পুলিশ আটককৃতদের রাঙ্গামাটি জজ আদালতে নিয়ে গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here