শহীদ মংচসিং মারমার মৃত্যুবার্ষিকীতে মোমবাতি প্রজ্জলন,স্মরণসভা ও ফানুস উত্তোলন অনুষ্ঠিত

0
571

হিল ভয়েস, ২৪ মে ২০২২, রাঙ্গামাটি: পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের উদ্যোগে শহীদ মং চসিং মারমার ১০ম মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণ সভা, মোমবাতি প্রজ্জ্বলন ও ফানুস উত্তোলন রাঙামাটি জেলা শাখার অফিস প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্মরণ সভার শুরুতে শহীদ মংচসিং মারমার স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নরেশ চাকমার সঞ্চালনায়  এবং  সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সুপ্রিয় তঞ্চঙ্গ্যার সভাপতিত্বে শহীদ মংচসিং মারমা ও জুম্ম জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার প্রতিষ্ঠায় পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের আন্দোলনে পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের কর্মীদের আতœত্যাগের কথা তুলে ধরেন পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের সহ সভাপতি থোয়াইক্যজাই চাক।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ পার্বত্য চট্টগ্রামের একমাত্র লড়াকু ছাত্র সংগঠন। পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ তার অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে অনেক কর্মীদের হারিয়েছে। শহীদ মংচসিং মারমা জীবন দিয়ে প্রমাণ করেছে এই ছাত্র সংগঠন সংগ্রাম করতেও জানে আর জীবনও দিতে জানে। পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ তার সংগ্রাম অবশ্যই সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে আরও দুর্বার গতিতে। স্মরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন  পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, শহীদ মংচসিং মারমা পিসিপি কাপ্তাই সুইডিস পলিটেকনিক শাখার সক্রিয় কর্মী ছিলেন। ২০১২ সালের ২০শে মে পিসিপির কেন্দ্রীয় ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে অংশগ্রহণ  শেষে বাড়িতে  ফেরার জন্য রাঙ্গামাটির কল্যাণপুরস্থ পেট্রোল পাম্পে সহকর্মী ও বন্ধুদের অপেক্ষা করছিলেন। বিকাল ৩:৩০ টার দিকে অপেক্ষামান বাসের পাশ ঘেষে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি চলমান সিএনজি গতি কমিয়ে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী ইউপিডিএফের সন্ত্রাসীরা আকস্মিক গ্রেনেড ছুড়ে মেরে  দ্রæত চলে যায়। সেই গ্রেনেড হামলায় তিনিসহ ১৩ জন সহযোদ্ধা মারাত্মকভাবে আহত হন। অনেকের হাত, কারোর পা, কারোর শরীর কিংবা কারোর চোখে আঘাত পান এবং মাংস পিন্ড ছিটকে পড়ে।  সহপাঠীরা তাদেরকে দ্রæত রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি দেখে দায়িত্বরত চিকিৎসকের পরামর্শ মোতাবেক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদেরকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনার দুইদিন পর ২২ মে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মংচসিং মারমা চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।