বান্দরবানে যৌথবাহিনীর অভিযানে একজন শিশুসহ ২ জন বম নিহত

0
113

হিল ভয়েস, ২৪ মে ২০২৪, বান্দরবান: বান্দরবান সদর উপজেলার সুয়ালক ইউনিয়নের শারণ পাড়াতে যৌথবাহিনীর অপারেশনে একজন শিশুসহ দুইজন বম নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

গত ২৩ মে ২০২৪, বান্দরবান-রুমা-থানচি সড়কের শারন পাড়াতে এই ঘটনা ঘটে।

ছবি: নিহত শিশু ভানথাং পুই বম (১৩)

নিহতরা হচ্ছেন শারন পাড়ার পেনখুব বমের ছেলে লালনৌ বম (২৭) এবং বেথানি পাড়ার বাসিন্দা জারথাং লিয়ান বমের ছেলে ভানথাং পুই বম (১৩)।

নিহতরা সশস্ত্র সংগঠন কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ)-এর সদস্য বলে দাবি করেছে যৌথ বাহিনী।

তবে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে যে, ১৩ বছর বয়সী ভান থাং পুই বম স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি কেএনএফের সাথে যুক্ত নন বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।

যৌথবাহিনীর অপারেশনের ভয়ে তার বাবা-মার সাথে পালিয়ে যাওয়ার সময়ে ভান থাং পুই বম গুলিবিদ্ধ হয়ে এবং বোমার আঘাতে নিহত হন বলে জানা যায়।

অপরদিকে লালনৌ বম @নৌয়া কাচিন স্টেটে ৪২ জন ট্রেনিং প্রাপ্ত সদস্যদের মধ্যে একজন বলে জানা যায়। তিনি কেএনএফ এর সক্রিয় সদস্য।

উক্ত নিরীহ শিশুসহ গত ৭ এপ্রিল থেকে যৌথবাহিনী কর্তৃক কেএনএফের বিরুদ্ধে অভিযানের নামে মোট ১০ জন নিরীহ মানুষকে গুলি করে হত্যা করা হলো। তার মধ্যে গত এপ্রিলের মাঝামাঝিতে সেনাবাহিনী কর্তৃক বিএ অনার্স পড়ুয়া এক নিরীহ বম ছাত্র, ২ মে রোয়াংছড়ির পাইনখ্যং পাড়া গ্রামে ৫ জন বম গ্রামবাসী এবং ১৯ মে ৩ জন ছাত্রকে গুলি করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, নিরাপত্তা বাহিনীর চলমান কেএনএফ বিরোধী অভিযানে গত ৭ এপ্রিল থেকে এ যাবত মোট ১১৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কেএনএফ সন্ত্রাসীরা গত ২ এপ্রিল, রুমায় সোনালী ব্যাংকে এবং ৩ এপ্রিল, থানচিতে সোনালী ব্যাংক ও কৃষি ব্যাংকে পরপর ডাকাতি করে ১৪টি সরকারি আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি সহ বিপুল পরিমাণ অর্থ লুট করে এবং ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণ করে। উক্ত ঘটনার পর ৭ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও ডিজিএফআই এর নেতৃত্বে সরকারের যৌথ বাহিনী বান্দরবান এলাকায় ব্যাপক সামরিক অভিযান শুরু করে।