পূনর্বাসন না করে হরিজন সম্প্রদায়কে উচ্ছেদ করা যাবে না: ৬০ জন নাগরিকের বিবৃতি

0
176

হিল ভয়েস, ১৩ জুন ২০২৪, ঢাকা: ঢাকা (দক্ষিন) সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক মিরনজিল্লার হরিজন সম্প্রদায়কে পূনর্বাসন ব্যতিরেকে উচ্ছেদ করার চেষ্টার ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বিবৃতি প্রদান করেছেন দেশের ৬০ জন নাগরিক।

বিষয়টি মানুষের জীবনের স্বাধীনতা এবং মানবাধিকারের বিষয়টি বিবেচনা করে মিরনজিল্লা হরিজন সম্প্রদায়কে পুনর্বাসন ছাড়া উচ্ছেদ না করার দাবি জানিয়ে উক্ত বিবৃতি প্রদান করেছেন বলে জানিয়েছেন তাঁরা। এতে, মানবাধিকার কর্মী ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা, সুলতানা কামাল; নিজেরা করি সমন্বয়কারী, খুশী কবির; গণস্বাক্ষরতা অভিযাননের নির্বাহী পরিচালক ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা, রাশেদা কে চৌধুরী; টিআইবি নির্বাহী পরিচালক, ড. ইফতেখারুজ্জামান; বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী, অ্যাড. জেড আই খান পান্না; বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক, অ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্তসহ মোট ৬০ জন বিশিষ্ট নাগরিক স্বাক্ষর করেছেন উক্ত বিবৃতিতে।

বিবৃতিতে তারা উল্লেখ করেন যে, আমরা গভীর ক্ষোভ ও উদ্বেগের সাথে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জেনেছি যে, ঢাকা (দক্ষিন) সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মিরনজিল্লা কলোনিতে ৩ ও ৪ জুন উচ্ছেদ অভিযান চার প্লাটুন পুলিশ চেয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার বরাবর চিঠি পাঠানো হয়েছিল। ঐ নির্ধারিত দিনে তারা কিছু করেনি। কিন্তু গত ৯ জুন বেলা এগারটার দিকে বিপুলসংখ্যক পুলিশ নিয়ে ঐ এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান চালাতে গেলে হরিজন সম্প্রদায়ের লোকজন বাধা দেন। কর্তৃপক্ষ একটি বাউন্ডারী দেয়াল ও কয়েকটি স্থাপনা ভেঙ্গে ঐদিনের মতো ফিরে আসে।

এর পূর্বে ৬ জুন ২০২৪ তারিখ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে মিরনজিল্লা হরিজন পল্লী উচ্ছেদের প্রতিবাদে বংশালের ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের আগা সাদেক সড়কে কলোনির সামনে ‘বাংলাদেশ হরিজন ঐক্য পরিষদ’ মানববন্ধনের আয়োজন করে। তারা সমস্বরে বলেছেন- বংশালের এই পল্লী ঘিরে ৪০০ বছরের পুরোনো বসতি। যেখানে কয়েক হাজার মানুষ গাদাগাদি করে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। চলমান এই অবস্থার এখান থেকে উচ্ছেদ হলে আমরা কোথায় গিয়ে দাঁড়াব, মেয়রের এই সিদ্ধান্ত চরম মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল বলেও মনে করেন হরিজন সম্প্রদায়ের মানুষ।

যদিও বস্তি উচ্ছেদ মামলায় হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে পুনর্বাসন ছাড়া কোন বস্তি বা কলোনী উচ্ছেদ করা যাবে না। কারণ সংবিধানে জনগনের বাসস্থানের অধিকার রাষ্ট্র পরিচালনার মুলনীতির অন্তর্ভুক্ত। সেই সাথে সুপ্রীম কোর্ট অভিমত দেয় যে বাস্তুস্থানের অধিকার তার জীবন ধারনের অধিকারের সামিল যা আমাদের মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃত।

কলোনিতে বসবাস করা লোকজন বলে, ৪০০ বছর আগে তাদের পূর্বপুরুষদের এই অঞ্চলে পরিচ্ছন্নতা কাজের জন্য আনা হয়। বর্তমানে সাত শতাধিক পরিবার এই কলোনিতে গাদাগাদি করে বসবাস করছে। তাদের মধ্যে পাঁচ শতাধিক পরিবারের সদস্য সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কাজে নিয়োজিত। বাদবাকি দুই শতাধিক পরিবারের সদস্যের সবাই কোনো না কোনো সময়ে সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কাজে নিয়োজিত ছিলেন। নগরবাসীর সেবার জন্য তাঁদের আনা হয়েছিল। তাঁরা স্বেচ্ছায় এসে ঢাকা শহরে গেঁড়ে বসেননি। এমন বাস্তবতায় অবৈধ বলে সিটি করপোরেশনে কর্মরতদের বাইরে অন্যদের উচ্ছেদ করলে পথে নামতে হবে। তা ছাড়া হরিজন সম্প্রদায়ের সবার জাতীয় পরিচয়পত্রে স্থায়ী-অস্থায়ী ঠিকানা এই কলোনি।

হরিজন সম্প্রদায়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালের ২ জুলাই পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের পক্ষ থেকে স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব বরাবর মিরনজিল্লা হরিজন সিটি কলোনিভুক্ত জায়গায় বসবাসকারীদের জন্য আবাসিক ভবন ছাড়া কোনো বাণিজ্যিক ভবন কিংবা মার্কেট না করার অনুরোধ জানানো হয়। ওই বছরের ৫ জুলাই সাবেক পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এক চিঠিতে সাবেক দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকনকে কলোনিতে বসবাসকারীদের চাকরি ও আবাসন সমস্যা সমাধানের অনুরোধ জানান। ২০২২ সালের ১৬ মে হরিজন সেবক সমিতির পক্ষ থেকে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র বরাবর দেওয়া চিঠিতে কলোনির আবাসন সংকট সমাধানে পাঁচটি ১০ তলা ভবন নির্মাণের আবেদন করা হয়। একই বছরের ১৬ মে দক্ষিণ সিটির ৩৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আওয়াল হোসেন মেয়র বরাবর দেওয়া চিঠিতে মিরনজিল্লা হরিজন সুইপার কলোনিতে ১০ তলা বিশিষ্ট পাঁচটি ভবন নির্মাণের অনুরোধ জানান। (সুত্র: কালবেলা, ৬ জুন, ২০২৪)

কিন্তু বর্তমানে ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক কাঁচাবাজার করার নামে হরিজনদের কলোনির একাংশ গুঁড়িয়ে দেয়া শুধু অমানবিক নয়, তা চরম মানবাধিকার লংঘেনের সামিল। সর্বোপরি মনানীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেখানে ঘোষণা দিয়েছেন, বাংলাদেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না বা আবাসন থেকে বঞ্চিত হবেনা, সেখানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) পুরান ঢাকার বংশালের আগা সাদেক রোডের মিরনজিল্লার সুইপার কলোনির সংখ্যালঘু হরিজন সম্প্রদায়কে গৃহহারা করতে উঠে পড়ে লেগেছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কি প্রধানমন্ত্রীর এই অঙ্গীকার মানার প্রয়োজনীয়তা বোধ করেনা?

তাই নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে আমরা দ্ব্যর্থহীন কন্ঠে দাবি জানাচ্ছি কোন অবস্থায়ই মিরনজিল্লার হরিজন সম্প্রদায়কে পূনর্বাসন না করে উচ্ছেদ করা যাবে না। এ বিষয়ে আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত অঙ্গীকার বাস্তবায়নে তার হস্তক্ষেপ আশা করছি। একই সাথে সরকার ও সিটি করপোরেশনকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি যে, এই সরকার এস ডি জি বাস্তবায়নে অঙ্গীকারবদ্ধ, যার মূল কথাই হচ্ছে কাউকে পিছনে ফেলে রাখা যাবে না, আর প্রত্যেক নাগরিকের জন্য ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে হবে।