জুরাছড়িতে সেনাবাহিনীর আটকের শিকার তিন জুম্ম ছাত্র

0
329
ছবি : সেনাবাহিনী ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ইয়াবা ও চাঁদা আদায়ের রশিদ সহ আটককৃত ছাত্রদের ছবি তোলে।

হিল ভয়েস, ৪ মে ২০২৪, রাঙ্গামাটি: রাঙ্গামাটি জেলার জুরাছড়ি উপজেলা সদর এলাকা থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক আবারও ৩ জুম্ম নিরীহ ছাত্র আটকের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আটককৃতরা মুক্তি পায়নি।

জানা গেছে, আটককৃত ছাত্ররা ঐ সময় আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী জনৈক চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা কাজ শেষে বাড়িতে ফিরছিলেন। কিছুদিন আগেও সেনাবাহিনী একই স্থান থেকে নির্বাচনের কাজে দায়িত্বরত দুইজন ছাত্রকে আটক করে ব্যাপক হয়রানি করে। এই অবস্থায় অনেকের কাছে প্রশ্ন উঠছে যে, সেনাবাহিনী কি নির্বাচনে বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে এসব করছে? অথবা কোনো প্রার্থীর পক্ষে বা বিপক্ষে বাধা সৃষ্টি করতে চায়?

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ (৪ মে) দুপুর আনুমানিক ১ টার দিকে জুরাছড়ি উপজেলা সদরস্থ যক্ষা বাজার সেনা ক্যাম্পের সেনা সদস্যরা পরপর উক্ত তিন ছাত্রকে আটক করে।

আটককৃত তিন ছাত্র হলেন- (১) রূপম চাকমা, ২৫ বছর, পীং-বীরেন্দ্র চাকমা, গ্রাম-জামেসছড়ি, মৈদুং ইউনিয়ন, জুরাছড়ি; (২) সুরেন চাকমা, ২৪ বছর, পীং-অনীল কুমার চাকমা, গ্রাম-চিবে পানছড়ি, মৈদুং ইউনিয়ন, জুরাছড়ি ও (৩) রনি চাকমা, ২০ বছর, পীং-প্রেম কুমার চাকমা, গ্রাম-বড়ইতুলি, বনযোগীছড়া ইউনিয়ন, জুরাছড়ি।

রূপম চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) এর জুরাছড়ি থানা শাখার সাধারণ সম্পাদক; সুরেন চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক এবং রনি চাকমা, তথ্য ও প্রচার সম্পাদক বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, সেনাবাহিনীর একটি দল প্রথমে জুরাছড়ি সদর এলাকার ধামাইপাড়া সেতু থেকে মোটর সাইকেল থেকে নামিয়ে সুরেন চাকমা ও মোটর সাইকেল চালককে যক্ষা বাজার সেনা ক্যাম্পে নিয়ে যায়। এর কিছুক্ষণ পরেই, যক্ষা বাজার সেনা ক্যাম্পের চেক পোস্ট থেকে রূপম চাকমা ও রনি চাকমাকে আটক করে ক্যাম্পে নিয়ে যায় সেনা সদস্যরা।

জানা গেছে, ঐ সময় ছাত্ররা আসন্ন (৮ মে) উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সুরেশ কুমার চাকমার নির্বাচনী প্রচারণার কার্যালয় থেকে বাড়িতে ফিরছিলেন।

বর্তমানে সেনাবাহিনী ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ওই তিন ছাত্রকে ফাঁসানো ও হয়রানির উদ্দেশ্যে ছাত্রদের কাছে নিষিদ্ধ ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া গেছে বলে প্রচার করছে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক মুরুব্বি বলেন, মনে হচ্ছে শুধু হয়রানি নয়, নির্বাচনে ছাত্রদের স্বাভাবিক প্রচার কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করতেই সেনাবাহিনী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এসব আচরণ করছে।

উল্লেখ্য যে, গত ২৬ এপ্রিল তারিখও যক্ষাবাজার সেনা ক্যাম্পের সেনা সদস্যরা সরেশ চাকমা ও রনি চাকমা নামে দুই ছাত্রকে সুরেশ কুমার চাকমার নির্বাচনী প্রচারণার কার্যালয় থেকে ফেরার পথে ক্যাম্পে চেকপোস্টে আটক করে রাখে। প্রায় ৩ ঘন্টা আটক রেখে হয়রানি করে বিকাল ৫টায় ছেড়ে দেওয়া হয়।